এখন নোয়াখালীর প্রাচীন ঐতিহ্যের মধ্যে কেবল আছে এর ভাষা

- মাস্টারমাইন্ড প্রিন্স মাহী

** অনুসন্ধানে দেখা গেছে প্রায় এক কোটি মানুষ এ ভাষায় কথা বলে। বৃহত্তর নোয়াখালী ছাড়াও কুমিল্লার লাকসাম, চৌদ্দগ্রাম, চাঁদপুরের কিছু এলাকা, ভোলা, চট্টগ্রামের মিরসরাই সীতাকুন্ড ও সন্দীপের মানুষ এ ভাষাটিকেই ব্যাবহার করছে। মূল নোয়াখালী সাগর আর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ায় অনেক ঐতিহ্যই হারিয়ে গেছে। কিন্তু বুভূক্ষু সাগর গ্রাস করতে পারেনি এর ভাষা। একটি সমৃদ্ধ জনপদ নি:শেষ হয়ে গেলেও মানুষ ধারণ করে রেখেছে এই ভাষাকে।
বিশ্বের অনেক দেশের ভাষার সঙ্গে নোয়াখালী ভাষার অনেক মিল খুঁজে পাওয়া যায়। সুদূর অতীত কাল থেকে এ বন্দরের সাথে নীবিড় যোগাযোগ ছিলো মিয়ানমারের আরাকান. রেঙ্গুন, ভারতের কলিকাতা আর আসামের সাথে। সে অঞ্চলগুলোর সাথে নোয়াখালী ভাষার অনেক লেনদেন হয়েছে। নোয়াখালী ভাষার সঙ্গে আরাকানী ভাষার অনেক সামঞ্জস্য খুঁজে পাওয়া যায়। অসমীয় ভাষার সাথে এ অঞ্চলের ভাষার অদ্ভুত মিল রয়েছে।
বাংলা ভাষা নিঃসন্দেহে বিশ্বের সমৃদ্ধ ভাষার মধ্যে অন্যতম। এ ভাষা আরো সমৃদ্ধ হয়েছে এর আঞ্চলিক ভাষা গুলোর জন্য। সিলেট, চট্টগ্রাম, রংপুর, কুষ্টিয়া প্রভৃতি অঞ্চলের ভাষার মধ্যে রয়েছে আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্য। কিন্তু নোয়াখালীর ভাষার মধ্যে রয়েছে অন্য এক মাদকতা। বিভিন্ন এলাকার ভাষার মধ্যেও রয়েছে নানান বৈচিত্র্য। বৃহত্তর নোয়াখালীর ফেণী, রায়পুর-লক্ষীপুর, বেগমগঞ্জ-চাটখিল, কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট, হাতিয়া এবং মাইজদী প্রভৃতি অঞ্চলের আলাদা আলাদা ভাষার টান রয়েছে। শব্দ ও ভাষাতে কিছু কিছ ভিন্নতাও রয়েছে। খুব মনোযোগ দিয়ে শুনলে এর বৈচিত্র্য লক্ষ্য করা যায়। এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে রয়েছে অসাধারণ রসবোধতা। নানান কথায় নানান রসিকতায় এ ভাষা প্রাঞ্জল হয়ে উঠে। গ্রামীণ নারীদের ভিতর নানান স্লোক রসিকতা দিয়ে কথা বলার প্রচলন বহু কাল ধরেই রয়েছে। যে কোনো উৎসব পার্বনে এ ভাষাতে চলে নানান রসিকতার আয়োজন।
অনেকেই এ ভাষার উপর গবেষণা করেছেন। কিন্তু এ ভাষাকে নিয়ে আরো প্রচুর গবেষণার ক্ষেত্র রয়ে গেছে। এ ভাষায় প্রচুর গান নাটক লেখা হয়েছে। যেগুলো একেবারে নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষাতেই রচিত হয়েছে। সেগুলোর জনপ্রিয়তাও প্রচুর। সেলিম আল দীন নোয়াখালী ভাষায় নাটক লিখে ও পরিবেশন করে এ ভাষাকে আরো নান্দনিকতায় এনে দিয়েছেন। তাঁর ‘হাতহদাই’ ক্লাসিক নাটকটি আঞ্চলিক ভাষার এক অনবদ্য সাহিত্য। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচারিত নোয়াখালী ভাষার নাটক গুলো বিভিন্ন দর্শকদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। নোয়াখালী ভাষার এক নিবেদিত সাধক অধ্যাপক মোঃহাশেম এ অঞ্চলের মাটির ভাষায় প্রচুর গান রচনা করেছেন। সে গান গুলো এ অঞ্চলের মানুষের কাছে বেশ জনপ্রিয়।
নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষার মত বিভিন্ন আঞ্চলিক ভাষাগুলোও বাংলা ভাষাকে আরো সমৃদ্ধ করেছে। আঞ্চলিকতার দোষে সেগুলো আমাদের মূল ভাষাতে স্থান করে নিতে পারেনি। গণমানুষের ভাষা হিসাবে গণমানুষের কাছেই কেবল সেগুলো সমাদৃত হয়ে আছে।
বুদ্ধদেব বসু বাংলা সাহিত্যের কালজয়ী পুরুষ। তাঁর শৈশব কৈশোর কেটেছে নোয়াখালীতে। এ অঞ্চলের ভাষার মাধুর্য তাঁকে বিমুগ্ধ করেছিলো। তাঁর স্মৃতি কথায় তিনি লিখেছেন- ‘আর কোথাও শুনিনি ঐ ডাক, ঐ ভাষা, ঐ উচ্চারনের ভঙ্গি। বাংলার দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্তের ভাষা বৈশিষ্ট্য বিস্ময়কর। চাটগাঁর যেটা খাঁটি ভাষা, তাকেতো বাংলাই বলা যায়না। নোয়াখালীর ভাষা আমার মত জাত বাঙালকেও কথায় কথায় চমকে দিতো। শুধু যে ক্রিয়াপদের প্রত্যয় অন্যরকম তা নয়, শুধু যে উচ্চারনে অর্ধস্ফুট ‘হ’ এর ছড়াছড়ি তাও নয়, নানা জিনিসের নামও শুনতাম আলাদা। সে সমস্ত কথাই মুসলমানী বলে মনে করতে পারিনা। অনেক তার মগ, কিছু হয়তো বর্মী আর পর্তুগীজের কোনো না ছিটে ফোঁটা।’
ইতিহাসের অনেক হারিয়ে যাওয়া জনপদের সন্ধান খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। মাটির নীচ থেকে আবিষ্কার করেছেন হারিয়ে যাওয়া নানান সভ্যতা। কিন্তু মটি খুঁড়ে নোয়াখালীর প্রাচীন সভ্যতার কোনো হদিস কেউ খুঁজে পাবেনা। তবু কেউ কেউ সে অতীত খুঁজতে চেষ্টা করেছেন। কাজী মাহ্ফুজুল হক নোয়াখালী জেলার সমাজ সংস্কারক, সংস্কৃতিজন হিসাবে সকলের শ্রদ্ধার পাত্র ছিলেন। তিনি আজ প্রয়াত। নোয়াখালী পুরাতন শহরের ভাঙ্গন, আবার মাইজদীতে নতুন শহরের পত্তন, এ সবের অনেক কিছুই তিনি আশৈশব অবলোকন করেছেন। এ শহরে পুরাতন ঐতিহ্যের এখন আর কিছু নেই। অন্ধকারে শুধু হাতড়িয়ে বেড়ানো ছাড়া অতীত খুঁজা খুবই দুষ্কর। সে অতীত খুঁজতে গিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘ইতিহাসের তাড়নায়, অকৃতজ্ঞতার যাতনায় হারিয়ে যাওয়া চেতনা ধিক্কার দিচ্ছে। তাই পিছন ফিরে কোথা হোতে এলাম তাই খুঁজছি। মানুষ অন্ধকার পাতাল চিরে অজ্ঞাত অদৃশ্য সম্পদ আহরণ করে। গভীর সাগর তলায় ঝিনুক তুলে মুক্তা খোঁজে। অজানাকে জানার, অন্ধকারকে জয় করার কামনায় জীবনের ঝুঁকি নেয়। সে এক অদ্ভুত উন্মাদনা। সেই উন্মাদনায় মানুষ হিমালয়ের উচ্চ শিখরে পা রেখে আকাশ জয় করে চাঁদের বুকে খেলা করেছে। কিন্তু অতীতের হারিয়ে যাওয়া শত বছরের ইতিহাস শুধু মাত্র স্মৃতি দিয়ে লালন করা তথ্য দিয়ে গ্রন্থনা করা শুধু দু:সাধ্য নয় -দু:সাহসও। তবু আমরা সেই পথের অভিযাত্রী।’
এখন নোয়াখালীর প্রাচীন ঐতিহ্যের মধ্যে কেবল আছে এর ভাষা। কোনো অনুসন্ধিৎসু অভিযাত্রী দল একদিন এই অথৈ ভাষার সাগর পাড়ি দিয়ে ঠিকই খুঁজে নেবে হারানো সেই সবুজাভ দারুচিনি দ্বীপের ঠিকানা।

(মোট পড়েছেন 551 জন, আজ 1 জন)
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন