আসুন সুন্দরবনের পাশে দাঁড়াই

- নাজমুল আহসান

বাংলাদেশের দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত সুন্দরবন পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল হিসেবে স্বীকৃত। বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে বিস্তৃত এই বনের আকার দশহাজার বর্গকিলোমিটার, যার ৬,০১৭ বর্গকিলোমিটার রয়েছে বাংলাদেশের ভূখন্ডে। ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের তালিকায় অবস্থান করে নেয়া এই বনভূমির প্রায় ৩১ শতাংশই নদীনালা আর খালবিল, যার পরিমান ১,৮৭৪ বর্গকিলোমাটার। ১৯৯২ সালে এটি রামসার স্থান হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

sund
নামকরণঃ
বাংলায় “সুন্দরবন”-এর আক্ষরিক অর্থ “সুন্দর জঙ্গল” বা “সুন্দর বনভূমি”। সুন্দরী গাছ থেকে সুন্দরবনের নামকরণ হয়ে থাকতে পারে, যা সেখানে প্রচুর জন্মায়। অন্যান্য সম্ভাব্য ব্যাখ্যা এরকম হতে পারে যে, এর নামকরণ হয়তো হয়েছে “সমুদ্র বন” বা “চন্দ্র-বান্ধে (বাঁধে)” (প্রাচীন আদিবাসী) থেকে। তবে সাধারণভাবে ধরে নেয়া হয় যে সুন্দরী গাছ থেকেই সুন্দরবনের নামকরণ হয়েছে।
বনজ সম্পদঃ
উদ্ভিদঃ

প্রচুর পরিমাণে সুন্দরী (Heritiera fomes) সহ গেওয়া (Excoecaria agallocha), গরান (Ceriops decandra) এবং কেওড়া (Sonneratia apetala) সুন্দরননের প্রধান প্রধান উদ্ভিদ। প্রেইন এর হিসাব মতে (১৯০৩ সালে) এখানে ২৪৫টি শ্রেনী ৩৩৪টি প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে। পৃথিবীর অন্যান্য অঞ্চলের বেশির ভাগ ম্যানগ্রোভে Rhizophoraceae, Avicenneaceae বা Laganculariaceae শ্রেণীর গাছের প্রাধাণ্য থাকলেও বাংলাদেশের ম্যানগ্রোভে প্রাধাণ্য Sterculiaceae এবং Euphorbiaceae শ্রেণীর গাছের ।
প্রানীঃ

সুন্দরবনের কতৃত্ব করা প্রানী হলো রয়েল বেঙ্গল টাইগার। ২০০৪ সালের হিসাব মতে এখানে ৫০০ রয়েল বেঙ্গল টাইগার আছে। কচ্ছপ (River terrapin – Betagur baska, Indian flap-shelled turtle – Lissemys punctata এবং Peacock soft-shelled turtle – Trionyx hurum), গিরগিটি Yellow monitor – Varanus flavescens ও Water monitor – Varanus salvator), অজগর (Python molurus) এবং রয়েল বেঙ্গল টাইগার (Panthera tigris tigris) সুন্দরবনের স্থানীয় প্রজাতিগুলোর মধ্যে অন্যতম। এছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির হরিণ (Hog deer – Axis procinus ও Swamp deer – Cervus duvauceli), মহিষ (Bubalis bubalis), গন্ডার(Javan rhinoceros – Rhiniceros sondaicus ও Single horned rhinoceros – Rhinoceros unicornis) এবং কুমিরের (Mugger crocodile – Crocodylus palustris) এর মত কিছু কিছু প্রজাতি সুন্দরবনে বিরল হয়ে উঠেছে ২১ শতকের শুরু থেকে। বাণিজ্যিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ ১২০ প্রজাতির মাছ, ২৭০ প্রাজাতির পাখি, ৪২ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৩৫ সরীসৃপ এবং ৮ টি উভচর প্রাজাতির আবাসস্থল। এ থেকে বোঝা যায় যে বাংলাদেশের সুন্দরবনে বিভিন্ন প্রজাতির একটি বড় অংশ বিদ্যমান (যেমনঃ ৩০ শতাংশ সরীসৃপ, ৩৭ শতাংশ পাখি ও ৩৭ শতাংশ স্তন্যপায়ী)।
(তথ্যসূত্রঃ উইকিপিডিয়া)

অনেক তো জ্ঞানের কথা হলো, এবার কাজের কথায় আসি। প্রাকৃতিক সপ্তাশ্চর্য নির্বাচন চলছে। আসুন আমরা সুন্দরবনের পাশে দাড়াই, আবার আগের অবস্থানে ফিরিয়ে আনি। সুন্দরবনকে ভোট করতে এখানে ক্লিক করুন । ভালো থাকুন।

(মোট পড়েছেন 86 জন, আজ 1 জন)
শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন