মাহবুবুল আলমের একগুচ্ছ গীতিকবিতা

- মাহবুবুল আলম

ইঁচড়ে পাকা

বয়স তখন কতই আমার, বারো কি বা তেরো
মনটাও ভীষণ উড়োউড়ো এগারো-বেগারো।

আজকে ওকে লাগলে ভালো, কালকে লাগে ওকে
উড়নচন্ডি চঞ্চল মন পুড়তো ধুকেপোকে।

বকুলকে যেই ভালোবেসে, গেলাম শিউলী তলায়
সামনে এসে দাঁড়ায় বেলী ফেলে পরীক্ষায়।

কা’কে আমি বাসবো ভাল, ভাবনা সারাবেলা
সুন্দরী কামিনীর সাথে, জমলো শেষে খেলা।

সে আমাকে নাড়ায় ভীষণ, অন্তরে বাহিরে
ভালোবাসার সুখের ডিঙ্গা চললো ধীরে ধীরে।

ক’দিন কাটলো এভাবেই, ভর্তি হলাম এইটে
কামিনীর ভাই লাগায় তালা, তাদের বাড়ির গেইটে।

তবুও আমি বসছি গিয়ে এডালে-ওডালে
মাতাল হাওয়া লাগছে ভীষণ প্রেম-প্রণয়ের পালে।

বাবার হাতে ধরা পড়ে, খেলাম ভীষণ মার
চোখে দেখি সর্ষেফুল দেখি অন্ধকার।

সেদিন থেকে ছাড়লেও প্রেম; স্মৃতির জানালায়
মাঝে মাঝে সেই প্রেমেরা উঁকি দিয়ে যায়।

আমাকে নিয়ে চলো

ইট-পাথরের এই শহরে গান বাজেনা প্রাণে
শ্যামল মায়ের মধুর স্মৃতি কেবল আমায় টানে।

গায়ের পাশে বয়ে যাওয়া গোমতি নদীর বাঁক
সেখানেটাতে উড়ে বেড়ায় হাজার পাখির ঝাঁক।

গায়ের বধূর সুবাসমাখা দীঘল কালো কেশ
জলকে চলে নদীর ঘাটে দেখতে লাগে বেশ।

দিগন্ত বিস্তৃত আকাশ, সর্ষে ফুলের মাঠ
কাকচক্ষু শীতল জলের সান বাধানো ঘাট।

ছেলেবেলার বন্ধু-স্বজন নেই পাশে আজ কেউ
তাদের জন্যে মন যমুনায় ওঠে দুখের ঢেউ।

মন পাখিটা উড়ে বেড়ায় বন-বনানীর ছায়
গোমতি নদী দিই যে পারি পারাপারের নায়।

মায়ের হাতের চিতই পিঠা বিন্নি ধানের খই
পাইনা খোঁজে এই শহরে হারিয়ে গেল কই।

এই শহরে দেখিনা আর স্নিগ্ধ চাঁদের আলো
মেকী আলোয় মেকী মানুষ মনটা ভীষণ কালো।

তাই আমাকে নিয়ে চলো আমার প্রিয় গাঁয়
গাছের ডালে বন্ধুরাসব বাতাসে দোল খায়।

প্রথম দেখা

যেদিন তোমায় প্রথম দেখি
পৌষ পার্বনের মেলায়,
তোমায় নিয়ে মন যে মাতে
অনুরাগের খেলায়।

মনলোভা হাসি তোমার
চোখে ইন্দ্রজাল,
তোমায় দেখে ভীষণ কাতর
দৃষ্টি হলো কাল।

মায়াভরা চাহনীতে
মন হলো উদাসী,
কখন যেনো আবার দেখি
মনকাড়া সে হাসি।

তোমায় দেখার আশায় ঘুরি
মেলার আয়োজনে,
যদি আবার দেখা মিলে
খোঁজি সঙ্গোপনে।

ঘুরে বেড়াই বইয়ের মেলায়
বসন্ত উৎসবে,
নববর্ষের মেলায় ঘুরি
হয়তো দেখা হবে।

কোথাও তোমার পাই না দেখা
ব্যস্ত এ নগরে,
তোমার জন্যে মনটা আমার
শুধুই কেঁদে মরে।

কোথায় তোমায় পাবো খোঁজে
নেই জানা ঠিকানা,
ঠিকই তোমায় নিতাম খোঁজে
করলেও বারণ মানা।

আর হলোনা কোনদিনই
তোমার সাথে দেখা,
হৃদয় মাঝে এঁকে গেলে
প্রেম-প্রণয়ের রেখা।

সে রেখাটা হচ্ছে বড়ো
হৃদয়ের গভীরে,
তার কারণে ভাসি আজো
ভাসি চোখের নীরে।

একা একা কৃষ্ণকলি

ঠাঠার গর্জনে পুড়ে গিয় মেঘ
বৃষ্টি হয়ে ঝরে
এমন বরষায় কৃষ্ণকলি
কি যেনো কী করে।

হয়তো বিরহী অধির অপেক্ষায়
বৃষ্টির জানালায় বসে,
একা একা শূন্য বুকে
বিরহের হিশেব কষে।

হৃদয় আমারও চঞ্চল হয়
বৃষ্টিধারার সুরে
এমন দিনে আমরা দু’জন
রয়েছি কত না দূরে।

বৃষ্টির ঝাপটায় ভিজে চারপাশ
ভিজে ওঠে খাঁ খাঁ মন
মেঘের কান্নায় কষ্টে ভিজি
আমরা দু’জন।

বৃষ্টিধারায় ভিজে যায় বন
মন ভিজে একই সাথে
বাদলধারার সুর মূর্ছনা
বাজে শূণ্য হাতে।

যতই দূরে থাকনা কেন
আমরা আছি এক সাথে
কষ্টে পুড়ছি আমিও জেন
এমন মধুর রাতে।

(মোট পড়েছেন 155 জন, আজ 1 জন)
শর্টলিংকঃ

১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন