ধনাঢ্য জিয়া পরিবার প্রসঙ্গে দুটি কথা

- মাহবুবুল আলম

মাহবুবুল আলম

জিয়া পরিবারের দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত সম্পদের মাধ্যমে ‘আঙ্গুল ফুলে বটগাছ’ হলেও (আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ’ বাগধারাটি এখানে উদাহরণ হিসেবে প্রয়োগ করা অপমানজনক) বিএনপি নেতারা জিয়া পরিবারকে ধোয়া তুলশী পাতা বলে এতো মিথ্যাচার করছেন তার প্রেক্ষিতে জিয়া পরিবারের ব্যবসা বাণিজ্যের সামান্য কিছু খতিয়ান তুলে ধরলেইতো তারা আর জবাব দিতে পারবেন না, কিভাবে ১৯৯১ সালে তাদের মা বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতাসীন হওয়ার পরে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি ও মায়ের প্রভাব খাটিয়ে এবং রাষ্ট্রযন্ত্রকে কাজে লাগিয়ে ১৯৯১ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যে মাত্র ১৫ বছরে ১. ডান্ডি ডায়িং ২. রহমান শিপইয়ার্ড যার পরিচালনায় রয়েছে কোকো জাহাজ-১ থেকে কোকো জাহাজ-৬ পর্যন্ত ৩. ক্লিংকার ইন্ডাষ্ট্রিজ ৪. ওয়ান স্পিনিং মিল ৫. বসুন্ধরায় জমি ৭. এ্যাভান্স নেট ৮. স্পোর্টস ওয়ার ৯. রহমান গ্রুপ ১০. হাসান কোঃ(বিডি) লিঃ ১১. ডান্ডি মার্কেটিং লিঃ ১২. বি.সি কর্পোরেশন লিঃ ১৩. ঢাকা সাংহাই সিরামিক লিঃ ১৪. ডাইপার লিঃ ১৫. ওয়েসিস ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড ১৬. অরচার্ড এয়ার লিঃ ১৭. সিন ক্লেয়ার ফার্মা লিঃসহ আরো নামে বেনামে অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক বনে যান।

এখানে হাজার হাজার কোটি টাকা ও স্বর্ণাংকারের কথা কিন্তু বাদই থাকলো। তাহলে জিয়া পরিবার মাত্র ১৫ বছরে কি করে এতো বিপুল অর্থবিত্তের মালিক হলো? পাগল বা শিশুরাওতো জানে যে সৎ পথে উপার্জন করে কোনো পরিবার এতো স্বল্প সময়ে হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি ও ব্যবসার মালিক হতে পারে না। তবে তা সম্ভব ভাঙা স্যুটকেস ও ছেড়া গেঞ্জি যদি আলাদীনের যাদুই চেরাগ হয়ে যায় তা হলেই।

কথা হলো আইন সবার জন্য সমান। সেটা সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সন্তান বা পরিবারই হোক বা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিবারই হোক। একটা গরীব দেশের সাধারণ মানুষের রক্ত শোষণ করে যারা স্বল্প সময়ের ব্যবধানে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক বনে যান, তাদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে মামলা বা সাজা হলে সেখানে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা আবিস্কার করা কখনো সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। দেশের প্রচলিত আইনে সামান্য চুরির অপরাধে যদি জেল জরিমানা হতে পারে, সেখানে ক্ষমতাধর রাজনৈতিক দলের পুত্র-কন্যা বা পরিবারের সদস্যরা দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করে বিদেশে পাচার করলে রাজনীতির অজুহাতে তারা রক্ষা পেয়ে গেলে দেশে আইনের শাসন আছে বলে তো কেউ মনে করবে না। আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান, সে রাজার ছেলে হোক, আর ভিখেরীর ছেলেই হোক।

(মোট পড়েছেন 240 জন, আজ 1 জন)
শর্টলিংকঃ

৮টি মন্তব্য

  1. ভালো বলেছেন। তবে আপনার লেখা দেখলেই কেন যেন মনে হয় আওয়ামীলীগের পা-চাটা টাইপের কিছু লিখেছেন :I-m-Bored:

    1. মাহবুবুল আলম Mahbubul Alam বলেছেন:

      তোমার ছবি দেদেখে মনে হয় তুমি আমার ছেলের চেয়েও কম বয়সি একজন বালক। কিন্তু বিভিন্ন পোস্টে তোমার মন্তব্য দেখলে মনে হয় তোমার মা-বাবা তোমাকে শিষ্টাচার শিক্ষা দয়নি। …
      আর তোমার এ মন্তব্য প্রসংগে বলতে চাই এই পোস্টে আওয়ামী লীগের পক্ষে কোন কথা বলা হয়নি। বলা হয়েছে রাজনীতির নামে এদেশের রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীদের ছেলে-মেয়েরা কিভাবে স্বল্প সময়ে হাজার হাজার কোটি টাকার মালি হয়ে যায়। শত শত কোটি টাকা বিদেশে পাচার করে দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দেয়। …
      সবার বক্তব্যের সাথেই যে সবাইকে সহমত পোষণ করতে হবে তা কিন্তু নয়। তাই বলে কাউকে আওয়ামী লীগের পা-চাটা বলে গালি দিলে, তাকে সরাসরি অাক্রমন করে মন্তব্য করলে সেই মন্তব্যকারী যে জামায়াত-শিবির-বিএনপি ও হেফাজত ইসলামের মতো প্রতিক্রিয়াশীল দলের পা-চাটা কুকুর তা বিশ্বাস করার যথেষ্ঠ কারণ প্রকাশ হয়ে যায়। :Jack-Sparrow:

      1. কারে কী কন ওস্তাদ! আপনের মাথা ঠিক নাই। কই থাকল জামাট, হেপাজত, আম্লিগ, বিম্পি আর কই থাকলাম আমি :Delighted:
        আমার আগের কমেন্টটা ভালো করে পড়েন। এরপর আপনের নিজের আগের পোস্টগুলো যত্নসহকারে পড়ে আসেন। তারপর বলেন আমি ভুল কী বলছি। আপনের সব লেখাই তো আম্লিগের চামচামি টাইপের। মাঝখানে এইডা ভালো হইছে বলেই তো প্রশংসা করলাম। :Cool:
        আর ব্লগিং করতে আইছেন, খালি পোস্ট দিবেন আর ফুড়ুৎ কইরা উড়াল দিবেন তা তো হয় না। আপনার পোস্টে এই প্রথম কোনো মন্তব্যের জবাব দিলেন। মাশাল্লাহ :Pleasure:

        1. নাজমুল ভাই, আপনার বলার ধরণ একটু খারাপই হইছে। যা-ই হোক, বাদ দেন। ঝগড়াঝাঁটি করে কী হবে? :Heart-Chocolate-Gift:

          1. আচ্ছা, বাদ দিলাম :Happy:
            কবি, আসেন বন্ধু হই :Beer:

      2. আমার ফডু দেইখা অনেক কিছু অনুমান করছেন, ভালা। বাপ-মা তুইলা কথা বলছেন, আরও ভালা। আপনে যে অনেক ভালা মানুষ, দেয়ার ইজ নো ডাউট। যা-ই হোক, আপনেরে যে কমেন্ট করাইতে পারছি, এতেই আমি মুগ্ধ। ফীলিং প্রাউড :Geek:

      3. বাদ দেন স্যার। ঝগড়াঝাঁটি করে কী হবে? :Heart-Chocolate-Gift:

মন্তব্য করুন