পিটিসি সাইটে সফলতার জন্য।

- বার্ণসিল

কোনকাজে দক্ষতা ছাড়াই আয় করুন অনলাইন থেকে, পিটিসি ।
অনলাইনে আয়ের অন্য কোন উপায় যাদের জানা তাদের প্রবেশ সময়ের অপচয়।
আপনাদের বলি আপনি যদি কোন কাজ এ দক্ষ হয়ে থাকেন যেমন গ্রাফিক্স ডিজাইন, কোন প্রগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ,এসইও, বা অন্য যেকোন ধরনের সফটওয়্যারে) যদি আপনার দক্ষতা থেকে থাকে তাহলে পিটিসি সাইটে কাজ করে নিজের মূল্যবান সময় নষ্ট করবেন না দয়া করে।
আর যারা অনলাইনে আড্ডা মেরে সময় নষ্ট করেন বা যাদের ফ্রী সময় আছে কিন্ত কোন কাজ পারেন না তাহলে তাদেরকে বলছি শুনুন শুধুমাত্র আপনার যদি ধৈর্য থেকে থাকে তাহলেই আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন [ইনশাল্লাহ]। প্রতিমাসে ১০০ ডলার ইনকাম করার জন্য আপনাকে প্রতিদিন ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা সময় ব্যায় করতে হতে পারে তবে আপনি কাজ শুরু করার প্রথম মাস থেকেই এত টাকা ইনকাম করতে পারবেন না। আপনাকে ধরে নিতে হবে যে প্রথম দুই মাস আপনার কোন ইনকাম হবেনা তাই ধৈর্যহারা না হয়ে কাজ করে যান নিরবে।আমাদের দেশে কাজের সাথে কাজের পারিশ্রমিকের কোন মিল নেই, মিল নেই ইনকাম এর সাথে খরচের। সবাই শুধু চিন্তা করে ইশ যদি ইনকামটা আর একটু বাড়ানো যেত তাহলে হয়ত আর একটু ভালো বাসাতে থাকা যেত। আর যারা ছাত্র তারা চিন্তা করে বাসা থেকে যদি আর একটু টাকা পয়সা বেশি দিত তাহলে হয়তো আরো একটু ভাল ভাবে চলতে পারতাম। তবে একটা কথা আপনাদের বলতে চাই পিটিসি কাজটাকে কেউ কারো মেইন কাজ হিসাবে নিবেন না দয়া করে। প্রতিমাসে এক্সট্রা একটু ইনকাম এর জন্য যে কাজ সেটা যেন এক্সট্রা কাজ হিসাবেই থাকে। পিটিসি সাইটে কাজ করে বাংলাদেশের অনেকেই সফলতা পেয়েছেন।যারা পিটিসি কাজ সম্পর্ক জানেন তাদের জন্য এই পোষ্ট নয়। ইন্টারনেটে অনেক পিটিসি সাইট আছে যার বেশির ভাগই ভুয়া বা পেমেন্ট করেনা। তাই সবার কাছে অনুরোধ থাকবে কোন সাইট দেখেই কোন খোজ খবর না নিয়ে কাজ করা শুরু করবেন না যেন। যে সাইটে কাজ করবেন তার সম্পর্কে গুগলে সার্চ করুন সাইটি সর্ম্পকে বিস্তারিত জানুন। যদি সাইটি সম্পর্কে স্ক্যাম হিসেবে কোন তথ্য পান তাহলে ভুলেও সেই সাইটে কাজ করে সময় নষ্ট করবেন না। বাংলাদেশে যেমন ডুল্যান্সার,স্কাইল্যান্সার টাইপ কোম্পানী ছিল।
পিটিসি সাইটের জানা অজানা তথ্য !!!
অনলাইন আয়ের সবচেয়ে আলোচিত এবং সহজ,পিটিসি সাইট।
অনলাইনে আয় করা টাকা বাংলাদেশে কিভাবে আনবেন,পে’জা ।।
সব সময়ের সেরা ৫ টি পিটিসি।
পিটিসি সাইটে কাজ করতে চাইলে কমপক্ষে ১৫-২০ টা সাইট নির্বাচন করুন। ভালভাবে সাইট সম্পর্কে খোঁজ নিন। এর জন্য গুগল ই যথেষ্ট। তারপরও দেখতে পারেন বিভিন্ন ফোরাম যেটা সবচেয়ে কার্যকরী। ব্লগ,ফেসবুক দেখতে পারেন। ৬ মাস তথ্য সংগ্রহ করুন। তারপর একসাথে ৩-৫ টা সাইটে টাকা খাটান। কারণ পিটিসি সাইট বলতে আমরা বুঝি স্ক্যাম। আর একসাথে ৫ টা সাইট স্ক্যাম হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম।
পিটিসি সাইটে সফলতার জন্য :
১.মেম্বরশীপ আপগ্রেড।
২. প্রতিনিয়ত রেন্টেড রেফারেল বৃদ্ধি করা।
৩. বিভিন্ন প্রকারে ডাইরেক্ট রেফারেল সংগ্রহ।
— বিভিন্ন পিটিসি সাইটে প্রচার [পছন্দনীয়]
— ব্লগ লেখা
— বিভিন্ন ফোরামে জয়েন করে রেফারেল বিনিময় করা।
৪. পিটিসি সাইটে PTSU চালু করা।

পিটিসি সাইট মূলত কাদের জন্য?

– যারা একবারেই অলস।

– অনলাইনে কোন কাজ একেবারেই জানা নেই কিন্তু টাকা আয় করতে চান।

– গৃহিণী, অক্ষম ব্যক্তি ।

– শুধু শুধু যারা ফেসবুকে বা অন্যান্য সাইটে অনর্থক সময় ব্যয় করে।

পিটিসি সাইট কাদের জন্য নয়

– যারা অতি তাড়াতাড়ি টাকা কামাইতে চায়।

– অনলাইনে অন্যান্য কাজের দক্ষতা আছে বা শেখার আগ্রহ এবং সুযোগ রয়েছে।

সতর্কতা : পিটিসি সাইটে টাকা বিনিয়োগ (বিশেষ করে – মেম্বারশীপ আপগ্রেড) করার আগে ভাল করে গুগলিং করুন।বিভিন্ন ফোরাম,ব্লগে একটিভ থাকুন।

[অবশ্যই সকল তথ্য একটি ডায়েরীতে লিখে রাখবেন,যেমন- ইমেইল,ইউসারনেম,পাসওয়ার্ড(প্রতিটা সাইটের পাসওয়ার্ড আলাদা রাখার চেষ্টা করবেন)]

(মোট পড়েছেন 423 জন, আজ 1 জন)
শর্টলিংকঃ

১টি মন্তব্য

  1. prantosa1 বলেছেন:

    ভাই আমি ১টা ফোন দিয়ে কয়টি সাইটে account করতে পারব???

মন্তব্য করুন